ইতিহাসের এই দিনে

0
76
ইতিহাসের এই দিনে

আজ (বৃহস্পতিবার) ০১লা সেপ্টেম্বর’২০২০

বিশ্ব প্রবীণ দিবস
আজ আন্তর্জাতিক প্রবীণ দিবস। জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ১৯৯০ সালের ১৪ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত সাধারণ সভার সিদ্ধান্তক্রমে ১৯৯১ সাল থেকে প্রতি বছর ১ অক্টোবর আন্তর্জাতিক প্রবীণ দিবস পালিত হচ্ছে। পরবতীতে জাতিসংঘ ১৯৯৯ সালকে ঘোষণা করে আন্তর্জাতিক প্রবীণ বর্ষ। ১৯৮২ সালে জাতিসংঘের ও সমর্থিত প্রবীণ সংক্রান্ত ভিয়েনা আন্তর্জাতিক কর্ম পরিকল্পনা অনুসরণে এই দিবস ঘোষণা করা হয়। বিশ্বব্যাপী প্রবীণ জনগোষ্ঠীর প্রতি সচেতনতাসহ তাদের মানবিক ও সম্মানজনক অধিকার সংরক্ষণই দিবসটির উদ্দেশ্য। বাংলাদেশসহ পৃথিবীর সর্বত্র দিবসটি পালিত হয়।

প্রবীণতৃ মানব জীবনের শেষ অধ্যায়। প্রবীণরা স্বভাবতই অন্যান্যদের মতো মানবিক ও মৌলিক অধিকার প্রাপ্য। বরং শাশ্বতভাবে অন্যান্যদের চেয়ে বেশি মর্যাদা সুযোগ সুবিধা প্রাপ্তির দাবিদার। তারা পুরোটা জীবন ধরে ও কর্মময় তৎপরতা দিয়ে নিজ নিজ পরিবার গঠনে ও উন্নয়নে এবং সমাজ ও জাতির সার্বিক অগ্রগতি প্রক্রিয়ায় স্ব-স্ব পেশায় অক্লান্তভাবে কাজ করেন। জাতীয় জীবনে তারা রাখেন নানামুখী অবদান। কিন্তু দুঃখের বিষয় জীবনের শেষ দিনগুলোতে তারা হয়ে পড়েন গুরুত্বহীন, সমাজ ও সংসারের বোঝা, অবহেলার পাত্র। মুখোমুখি হন নানাবিধ আর্থ-সামাজিক স্বাস্থ্যগত ও মানসিক সমস্যার। নিদারুণভাবে বঞ্চিত হন তারা তাদের মৌলিক মানবিক অধিকার থেকে । বিষময় হয়ে ওঠে প্রবীণের জীবনের শেষ পর্ব। এই অবস্থা রীতিমতো অবিচার। এ থেকে উত্তরণ প্রয়োজন। প্রয়োজন মানব জীবনের শেষ অধ্যায়কে সফল, সার্থক ও স্বাচ্ছন্দ করা। নতুবা প্রবীণরা তাদের জীবনের শেষ অধ্যায়কে অভিশপ্ত মনে করে বিদায় নেবে পৃথিবী থেকে। এটা তার উত্তরসূরী সমাজের ওপর ফেলবে অভিশাপের ছায়া।

আধুনিক বিজ্ঞানের কল্যাণে মানুষের গড় আয়ু বৃদ্ধি পাচ্ছে। সেই সঙ্গে বৃদ্ধি পাচ্ছে প্রবীণদের সংখ্যা। মানুষের গড় আয়ু বাড়ছে ১৯৩০ থেকে। ১৯৩০ এ বাংলাদেশের মানুষের গড় আয়ু ছিলো ৪০ বছরের নিচে । ১৯০০ খ্রিস্টাব্দে আমেরিকার জনগণের গড় আয়ু ছিলো ৪৭ বছর। বর্তমানে ৮০ । ১৯৩৪ এ
জাপানিদের গড় আয়ু ছিলো ৩৫। ১৯৯৬ খ্রিস্টাব্দে হয়েছে পুরুষ ৭৬, মহিলা ৮৩। জাপানে ১০০ বছরের বেশি বয়সী জনসংখ্যা ১৫৩ জন। বাংলাদেশে ১৯৫০ খ্রিস্টাব্দে ৬৫ বছরের বেশি বয়সের জনসংখ্যা ছিলো ১৫৫,০০০ এর কম। ১৯৯০ সালে এ সংখ্যা দাড়িয়েছে ৩,৩৫,০০০ । অর্থাৎ প্রবীণদের সংখ্যা বাড়ছে দ্রæত হারে । উন্নত দেশে প্রবীণদের জন্যে বিভিন্ন ধরনের কল্যাণকর ব্যবস্থা রয়েছে এবং ক্রমাগত তা বিস্তৃত হচ্ছে। প্রবীণদের প্রতি বৃদ্ধি পাচ্ছে সচেতনতা। সমাজ ও পরিবারে মিলছে স্বীকৃতি। বাংলাদেশের সমাজ ব্যবস্থায় একসময় একান্নভুক্ত পরিবার ব্যবস্থায় প্রবীণদের অবস্থান ছিলো অত্যন্ত সম্মানজনক। কালের পরিবর্তনে ও পাশ্চাত্য সমাজ ব্যবস্থার প্রভাবে প্রবীণরা ক্রমশ সমাজে হয়ে পড়েছে বোঝা ও পরিত্যাজ্য । বাংলাদেশে প্রবীণ হিতৈষী সংঘ ও জরা বিজ্ঞান প্রতিষ্ঠান বেসরকারিভাবে ১৯৬০ সাল থেকে দেশের প্রবীণদের কল্যাণে কাজ করছে। সরকারিভাবে তেমন উল্লেখযোগ্য কোন কার্যক্রম নেই। অথচ ১৯৮২ খ্রিস্টাব্দে জাতিসংঘের উদ্যোগে ভিয়েনাতে প্রবীণদের নিয়ে যে আন্তর্জাতিক কর্ম পরিকল্পনা প্রণয়ন করা হয় তদানুযায়ী প্রবীণদের আর্থ-সামাজিক নিরাপত্তা বিধানের দায়িত্ব জাতিসংঘভুক্ত প্রতিটি দেশের ওপর ন্যস্ত রয়েছে এবং বাংলাদেশও তার অন্তর্ভুক্ত। বাংলাদেশে গত বছর কয়েক থেকে বেশ গুরুত্বের সঙ্গে দিবসটি পালিত হচ্ছে।

১৬৮৪ খৃষ্টাব্দের এ দিনে প্রখ্যাত ফরাসী কবি ও নাট্যকার পিয়েরে করর্নাইল ৭৬ বছর বয়য়ে প্যারিসে পরলোকগমন করেন। তিনি ৬ ই জুন ১৬০৬ এ জন্মগ্রহণ করেন। তিনি আইন বিষয়ে পড়াশুনা করেন এবং একজন আইনজীবী হিসেবে নাম লেখালেও এতে তার কোনো আগ্রহ ছিল না। তার ঝোঁক ছিল সাহিত্যের প্রতি। আর তাই তিনি একাধারে বিয়োগান্তক ও কমেডি নাটক লেখার কাজে হাত দেন। তার লেখা নাটকগুলোর মধ্যে হোরাস ও সিনা ”দুটি বিখ্যাত নাটক। তাকে ফরাসী ক্লাসিকাল থিয়েটারের জনক বলা হয়। তিনি ৩০ টিরও বেশী খুবই উচুঁ মানের ট্রাজেডী নাটক রচনা করেছেন। তার রচিত সে সব নাটকের চরিত্রগুলোর ভালোবাসার নমুনা ছিল বিরোচিত এবং দায়িত্বের ক্ষেত্রেও বীরত্ব ছিল অতুলনীয়। ফরাসী সাহিত্যের ক্ষেত্রে তার অবদান অতুলনীয় ।

১৯৮৫ সালের এ দিনে ইসরাইলের জঙ্গী বিমানগুলো তিউনিসিয়ায় ফিলিস্তিন মুক্তি সংস্থা বা পিএলও’র দপ্তরে হামলা চালায়। এ হামলায় প্রায় ৭০ জন নিহত ও বহুসংখ্যক আহত হয়। ১৯৮২ সালে লেবাননে ইসরাইলী হামলার ফলে পিএলও তার দপ্তর লেবানন থেকে তিউনিসিয়ায় সরিয়ে নেয়। একটি ভিন্ন দেশে পিএলও’র দপ্তরে হামলার ঘটনায় বিশ্ব জনমত ইসরাইলী শাসকগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিবাদ জানায়। কিন্তু দখলদার ইসরাইলের প্রতি মার্কিন সরকারের সমর্থনের কারণে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে ইসরাইলের বিরুদ্ধে কার্যকরী কোনো ব্যবস্থা নেয়া সম্ভব হয় নি।

হিজরী ১৩৬৯ সালের এই দিনে পাকিস্তানের খ্যাতনামা গবেষক সিরাজ মুনির পরলোক গমন করেন। তিনি পাকিস্তানে ফার্সী ভাষার বিস্তার এবং ইরানী সাংস্কৃতি ব্যক্তিত্ব ছাড়াও সাহিত্যিক ও দার্শনিকদের সাথে পাকিস্তানের জনগণকে পরিচয় করিয়ে দেয়ার ক্ষেত্রে বিরাট অবদান রাখেন। ‘সুখানভারনে ইরান’ তার অন্যতম একটি মূল্যবান গ্রন্থ। তিনি পাকিস্তানে ফার্সী গবেষণা ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা করেন।

১৬৮৪ সালের এ দিনে ফরাসী ক্লাসিক থিয়েটারের জনক কবি ও নাট্যকার পিয়েরে কর্ণাইল মারা যান। হোরাস ও সিনা তার লেখা দুটি বিখ্যাত নাটক।

ইতালির স্থপতি জাকোমাদা ভিনিওয়ালার জন্ম (১৫০৭)
প্রথম ইঙ্গ-আফগান যুদ্ধ শুরু (১৮৩৮)
ভারতবর্ষে সরকারিভাবে ডাকটিকিট চালু (১৮৫৪)
অস্ট্রিয়ায় প্রথম পোস্টকার্ড চালু (১৮৬৯)
বোয়িং বিমান কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা উইলিয়াম এডওয়ার্ড বোয়িংয়ের জন্ম (১৮৮১)
বেলুচিস্তান ভারতের সঙ্গে একীভ‚ত (১৮৮৭)
কুমিল্লায় সংগীত শিল্পী সুরকার, পরিচালক শচীন দেব বর্মনের জন্ম (১৯০৬)
মার্কিন প্রেসিডেন্ট জিমি কার্টারের জন্ম (১৯২৪)
রাশিয়া-পারস্য অনাক্রমণ চুক্তি স্বাক্ষর (১৯২৭)
মাও সেতুংয়ের নেতৃত্বে বেইজিংয়ে চীন প্রজাতন্ত্র ঘোষণা (১৯৪৯)
নাইজেরিয়ার স্বাধীনতা লাভ (১৯৬০)
যুক্তরাষ্ট্রে ওয়াটার গেট কেলেংকারির বিচার শুরু (১৯৭৪)
মিখাইল গরবাচেভ সোভিয়েত ইউনিয়নের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত (১৯৮৮)
বিশ্বে সর্বপ্রথম ডেনমার্কে সমকামীদের বিয়ের অনুমতি প্রদান (১৯৮৯)
কাশ্মীরের রাজ্যসভায় জঙ্গী হামলায় ৪০ জনকে হত্যা (২০০১)
বাংলাদেশে অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে খালেদা জিয়ার নেতৃত্বাধীন ৪ দলীয় জোটের বিপুল বিজয় (২০০১)

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন!
এখানে আপনার নাম লিখুন